728 x 90
728 x 90
728 x 90
Advertisement
create a new WordPress Website

শীর্ষ সন্ত্রাসী ও ইয়াবা ব্যবসায়ীদের নিয়ন্ত্রনে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারা হাসপাতাল

শীর্ষ সন্ত্রাসী ও ইয়াবা ব্যবসায়ীদের নিয়ন্ত্রনে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারা হাসপাতাল

শীর্ষ সন্ত্রাসী ও ইয়াবা ব্যবসায়ীদের নিয়ন্ত্রনে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারা হাসপাতাল

রিপন চৌধুরি, চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রতিনিধি:

 

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের অভ্যন্তরে কারা হাসপাতালটি শীর্ষ সন্ত্রাসী ও ইয়াবা ব্যবসায়ীরা নিয়ন্ত্রন করার তথ্য পাওয়া গেছে। কোন মামলায় নতুন কেউ জেলে গেলে কারা হাসপাতালের দায়িত্বে থাকা সজাপ্রাপ্ত মাদক ও ইয়াবা ব্যবসায়ী এবং সন্ত্রাসীরা বন্ধিদের পরিবারের কাছ থেকে কারা হাসপাতালের নামে নিয়মিত চাঁদাবাজির অভিযোগ অহরহ। অভিযোগ উঠেছে, চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারা হাসপাতাল নিয়ন্ত্রন করেন চট্টগ্রামের চিহ্নত সন্ত্রাসী যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত কয়েদি-৫৫১৪/এ মোহাম্মদ শামীম ও সাত লাখ পিস ইয়াবা মামলার ১৫ বছরের সাজাপ্রাপ্ত কয়েদি ৯০০৬/এ এহসান মোহাম্মদ আরফাতসহ সিন্ডকেটের নিয়ন্ত্রনে। তারা সাধারণ রোগীদের ভুল-ভাল চিকিৎসা দেয়ার কারণে কারাগারে অনেক বন্দির প্রাণহানির ঘটনাও ঘটছে। তাদের অবৈধ অনৈতিক কর্মকান্ডে সহযোগিতা করেন কারারক্ষি মো. হাবিব। করোনাকালিন নতুন বন্ধিদের হোম কোয়ারেন্টিনের পরির্বতে হাসপাতালে রেখে লক্ষ লক্ষ টাকার বাণিজ্য করে আসছে। চক্রটি হাসপাতালের দায়িত্বে থাকা সহকারী সিভিল সার্জনকেও প্রতি মাসে মোটা অংকের টাকা দেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

করোনাকালিন সময়ে কারাগারে নতুন কোন আসামি কারাগারে আসলে ১৪দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার পর ওয়ার্ডে রাখার সরকারি নির্দেশনা রয়েছে। সরকারি নীতিমালা অমান্য করে বর্তমানে শামীম এবং এহসান মিলে কারারক্ষি হাবিবের সহযোগিতায় হাসপাতালে নিয়ে নামে মাত্র ভর্তি দেখিয়ে জন প্রতি ৩০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত আদায় করেন। মাসিক ৭ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা করে দিতে বাধ্য করেন। যদি কোন কারণে তাদের দাবিকৃত টাকা দিতে না পারে অমানবিক নির্যাতন চালানো হয়। হাসপাতালের চিকিৎসা ও ওষুধ পত্র সব নিয়ন্ত্রন করেন শামীম এহাসান সিন্ডিকেট। কারা হাসপাতালের রোগীরা শামীম ও এহসানকে চিকিৎসক হিসেবে চিনেন এবং তারাই মূল চিকিৎসক বলে দাবি করেন। কারা হাসপাতালের অবহেলা অব্যস্থাপনার করাণে প্রতি মাসে কারাগারে বন্দির মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে অহরহ।

গত ৬ মে পায়ে রক্তাত্ব হয়ে কয়েদি খোরশেদ আলম চিকিৎসা নিতে গেলে তাকে শামীম চিকিৎসা দেন। এতে ভুল চিকিৎসার কারনে কয়েদি খোরশেদের পায়ের অবস্থা মারাত্বক বিপর্যয়ের মুখে। সম্প্রতি জামিনে কারামুক্ত হওয়া চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার তৌহিদুল ইসলামের পুত্র মনিরুল আজাদ কারা হাসপাতালের অভ্যন্তরের বিষয়ে ভয়াবহ, লোহমর্শক দৃশ্যর বর্ণনা দেন প্রতিবেদকের কাছে। শামীম এবং এহসান ডাক্তার না হয়েও নিয়মিত রোগীদেরকে ওষুধের প্রেসক্রিপশন দিচ্ছেন তারা। প্রকৃত পক্ষে শামীম প্রাইমারী স্কুলের গন্ডিও পার হতে পারেনি।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার দেওয়ান মো. তারিকুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কারা হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা দেয়ার জন্য সরকারিভাবে চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া আছে। নিয়োগকৃত চিকিৎসক ছাড়া অন্য কেউ চিকিৎসা দেয়ার বিষয়টি আমাদের জানা ছিল না, এই ধরণের কোন ঘটনা ঘটে থাকলে বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

Posts Carousel

Latest Posts

Top Authors

Most Commented

Featured Videos

ক্যালেন্ডার

June 2021
F S S M T W T
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930