728 x 90
728 x 90
728 x 90
Advertisement
create a new WordPress Website

বগুড়ায় পাট চাষে কৃষকের মুখে সোনালী হাসি

বগুড়ায় পাট চাষে কৃষকের মুখে সোনালী হাসি

আঁশ ছড়ানোর কাজে ব্যস্থ কৃষক। ছবিটি সাবগ্রাম ছাতিয়ানতলা থেকে তোলা। ছবিঃ জুয়েল হাসান

আজাদুর রহমানঃ চলতি বছর অনুকূল আবহাওয়া থাকায় পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে। সার ও ভালো বীজের সহজলভ্যতা ও পাটজাত পণ্যের ব্যবহার বৃদ্ধি করোনাকালীন সময় বিদেশে পাটের সুতার চাহিদা বেড়ে যাওয়াই চলতি বছর বাজারে পাটের বেশ কদর বেড়েছে।

কয়েক বছর যাবত প্রতিমণ পাট (৪০ কেজি) ১৫শ’ টাকা থেকে দুই হাজার টাকা দরে থাকলেও চলতি বছর শুরুতেই মানভেদে সাড়ে তিন হাজার হতে সাড়ে চার হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। চলতি বছর বাজারে শুরুতেই এমন দাম দেখে সোনালী আঁশের সু-দিন ফিরতে শুরু করেছে বলে মনে করছেন কৃষকরা। বগুড়ায় বাজারে উঠতে শুরু করেছে নতুন পাট। দাম মোটামুটি ভাল থাকায় এবারে চাষিদের লাভের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

এবারে জেলার সাবগ্রাম ইউনিয়ন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মমিনুল ইসলাম মামুন জানান, ইউনিয়নে ৮০ হেক্টর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। গত বছরে পাটের বাজার ছিল প্রতিমণ ২০০০-২২০০ টাকা কিন্তু এ বছর ৩০০০-৩২০০০ টাকা বা তার উপরে। তবে দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় কৃষক পাট ফসলের আগ্রহ প্রকাশ করছে।

পাট চাষি ও কৃষিবিদদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সরকারী ভাবে খাদ্যশস্যে পাটের বস্তা ব্যবহার বাধ্যতামূলক ঘোষনাসহ পাটপণ্যের ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়ায় কদর বেড়েছে পাটের। এছাড়াও করোনাকালিন বছরে বিদেশে পাটের চাহিদা বেড়েছে।

গত ২ বছর যাবত একটু একটু করে ভাল দাম পাওয়ায় বগুড়ায় পাটের সুদিন ফিরতে শুরু করেছে। তাই বৃদ্ধি পেয়েছে পাটের আবাদ। এই জন্য সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রেখেছে বগুড়ায় বেসরকারি পর্যায়ে নির্মিত কয়েকটি জুটমিল।

সম্প্রতি বগুড়ার বিভিন্ন এলাকায় দেখাগেছে শত শত শ্রমিক পাট ছড়ানো ও শুকানোতে ব্যস্থ সময় পার করছে।
সেখানে কথা হয় পাট চাষীদের সঙ্গে। তারা বলেন,গত বছর পাট চাষ করেছিলেন। বাম্পার ফলন ও বাজারে ভাল দাম পেয়েছিলেন। তাই চলতি বছর চাষের পরিধি বাড়ায় তিনি আবারো পাট চাষ করেছেন। তার পাট ছড়ানো ও শুকানো শেষ হয়েছে। তাতে করে এ বছর প্রতি বিঘা জমিতে সাড়ে ১২ মন করে ফলন হয়েছে। বাজারে ভাল দাম থাকায় ভাল লাভ হবে আশার করছেন তিনি।

তিনি বলেন বিশ্ব বাজারে সুতার দাম বেড়েছে। এজন্য পাটের দামও বেড়েছে বলে এ বছর শুরু তেই সাড়ে তিন হাজার টাকার উপরে বিক্রি হতে লেগেছে। আর কিছু দিন পরে আরো দাম বাড়বে বলে মনে করেন এ ব্যবসায়ী।
বলেন, গতবারের চেয়ে এবার লক্ষ্যমাত্রা ও ফলন দুটোই বেশি হয়েছে। শুরুতেই বাজারে পাটের দাম অন্যসব বছরের চেয়ে দ্বিগুণ পাওয়াই হাসি ফুটেছে বগুড়ার পাট চাষিদের মুখে। এক সময়ের সোনালি আঁশকে নিয়ে এ অঞ্চলের চাষীরা নতুন করে স্বপ্ন বাঁধছেন।

Posts Carousel

Latest Posts

Top Authors

Most Commented

Featured Videos

ক্যালেন্ডার

September 2021
F S S M T W T
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930