728 x 90
728 x 90
728 x 90
Advertisement
create a new WordPress Website

পলাশবাড়ীতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন সংশ্লিষ্টরা

পলাশবাড়ীতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন সংশ্লিষ্টরা

পলাশবাড়ীতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন সংশ্লিষ্টরা

মাসুদ রানা,পলাশবাড়ী (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি:

 

দীর্ঘদিন শিক্ষার্থীদের পদচারণা না থাকায় বিদ্যালয়ের আনাচে-কানাচেসহ পুরো মাঠ ভরে গেছে ঘাস-আগাছায়। দেয়াল ছেয়ে গেছে মাকড়ার জালে। টেবিল- চেয়ারে জমেছে ধূলো-ময়লার আস্তরণ। সরকার বিদ্যালয় খুলে দেওয়ার ঘোষণায় পরিস্কার- পরিচ্ছন্নতাসহ পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক- কর্মচারীরা।

 

মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) সকালে গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার বিভিন্ন সরকারি- বেসরকারি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঘুরে এমনই চিত্র চোখে পড়ে।

 

উপজেলা সদরের মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, কোন প্রতিবন্ধকতা না থাকায় মাঠের ঘাস গুলো বেড়ে উঠেছে স্বাধীন ভাবে। ঘাস গুলো এতটা বেড়ে উঠেছে যে মৃদু বাতাসে দোল খাচ্ছে। ভিতরে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিটি কক্ষের দেয়াল-ছাড় ছেয়ে গেছে মাকড়সার জাল, টেবিল-চেয়ারে জমেছে ধূলোবালির পুরু আস্তরণ। বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম নৈশপ্রহরী বেলাল সেসব পরিস্কার করছেন যত্নের সাথে।

 

বিদ্যালয়ে উপস্থিত প্রধান শিক্ষকসহ সহকারি শিক্ষকগণ।তারাও দিক-নির্দেশনাসহ বিদ্যালয় খোলাকে কেন্দ্র করে নানা কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন।বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও উপজেলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির সভাপতি সাহেদার রহমান সরকারের সঙ্গে। তিনি বলেন, উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা মোট ২১৬টি। এছাড়া রেজিস্ট্রার্ড বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে ৬টি। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে গত মাসের ২৩ তারিখ থেকে শিক্ষকরা নিয়মিত বিদ্যালয়ে আসছেন। আগামী ১২ তারিখে থেকে বিদ্যালয় খোলার প্রস্তুতি গ্রহণের জন্য এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সে লক্ষে বিদ্যালয় পরিস্কার-পরিচ্ছন্নসহ সার্বিক প্রস্তুতি নেওয়া হচেছ। বিদ্যালয়ের প্রতিটি স্থান জীবনামুক্ত করণসহ প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জন্য দুটি করে মাস্ক ও স্যানেটাইজারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।দু’এক দিনের মধ্যে মাঠের ঘাস পরিস্কার-কাটা হবে।

 

এদিকে, দীর্ঘদিন পর বিদ্যালয় খোলার ঘোষণা খুশি শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা। পাশাপাশি আছে উদ্বেগও। উপজেলা সদরের পলাশবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাদিয়া আক্তার জানান, স্কুল খুলছে জেনে অনেক আনন্দ হচ্চে।দীর্ঘদিন পর সহপাঠিদের সঙ্গে দেখা হবে। একসাথে পড়াশুনা-খেলাধুলা অনেক মজা হবে। বিদ্যালয় খোলার খবরে খুশি সাদিয়ার বাবা ব্যবসায়ী হাসিবুর রহমান স্বপনও। সেই সাথে উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, কোমলমতি শিশুরা দীর্ঘদিন ঘরবন্দি থাকার পর বিদ্যালয়মখী হবে এটা একদিকে যেমন আনন্দের। অন্যদিকে যেহেতু বাচ্চাদের টীকার আওতায় আনা হয়নি। তাই করোনার কারণে মনে একটা আতঙ্ক-উদ্বোগ কাজ করছে।

Posts Carousel

Latest Posts

Top Authors

Most Commented

Featured Videos

ক্যালেন্ডার

September 2021
F S S M T W T
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930